Freelancing

কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় ,দুর্দান্ত টিপস! ২০২০

কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় ,দুর্দান্ত টিপস! ২০২০

How to earn from YouTube, great tips! 2021

ইউটিউব থেকে আয়

earn from YouTubeঅনলাইন থেকে আয় করা যায় কথাটা আমরা সকলেই কম বেশি শুনে থাকি। অনলাইন থেকে আয় করার উপায়গুলোর মধ্যে একটি প্রধান উপায় হলো ইউটিউব থেকে আয় ।

কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় বিষয়টি নিয়ে কৌতুহলের শেষ নেই। কারণ বর্তমানে যে এই ইউটিউব থেকে আয় করা যায় লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা । অনেকেই সেটা সফলভাবে করছেও এমন কি আমাদের দেশ থেকেও এখন লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা ইনকাম করা সম্ভব হচ্ছে । ইচ্ছে করলে যে কেউ এটা করতে পারে ।

তবে সফল ইউটিউবার হতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য ও সততার পরিচয় দিতে হবে এবং সফলতার জন্য সময় ও শ্রম দিতে হবে।

কিন্তু আপনাকে এই বিষয়গুলো ভালোভাবে জানতে হবে,

কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় ?

ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায় কী ?

ইউটিউব থেকে কত আয় করা যায় ?

ইউটিউব কিভাবে টাকা দেয় ?

ইউটিউব থেকে আয় কেমন ?

আমরা আজকের আলোচনায় এই বিষয়গুলো নিয়ে খুব সহজ ভাষায় বুঝার চেষ্টা করবো এবং ইউটিউব জিনিসটা কি?সেটা সম্পর্কে ভালোভাবে ধারণা দেয়ার চেষ্টা করবো। তাহলে চলুন মূল আলোচনায় যাওয়া যাক-

কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় (how to earn meany youtube)

ইউটিউব কি?

ইউটিউব হলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইট । যেখানে প্রতিদিন লক্ষ্য লক্ষ্য নতুন নতুন ভিডিও পাবলিশ হয় এবং প্রতিদিন সারা পৃথিবী থেকে প্রায় ৩০ মিলিয়ন মানুষ এইসব ভিডিও দেখার জন্য ইউটিউবে ভিজিট করে থাকে।

ইউটিউব থেকে আয়

ইউটিউব থেকে আয় করতে হলে আপনার থাকতে হবে একটি ইউটিউব চ্যানেল । যে কেউ সেটি সর্ম্পূণ ফ্রিতে খুলে নিতে পারে তাই সেই সু-বাধে আপনিও সর্ম্পূণ ফ্রিতে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে ফেলতে পারেন।

ইউটিউব থেকে ভালো পরিমানে আয় করতে চাইলে এসব বিষয় মাথায় রেখে এগোতে হবে।

কিভাবে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা যায়

চ্যানেলের নিশ

প্রথমেই ঠিক করতে হবে আপনি কোন বিষয় নিয়ে কাজ করবেন বা করতে চান। যেমন- শিক্ষা, বিনোদন, প্রযুক্তি, রান্না, ফ্যাশন, ভ্রমণ, মজার ভিডিওসহ নানা বিষয় নিয়ে ইউটিউবে চ্যানেল তৈরি করতে পারেন। তবে যেকোনো একটি নির্দিষ্ট বিষয় নিয়ে চ্যানেল তৈরি করলে দর্শকের কাছে তা বেশি গ্রহণযোগ্য হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

চ্যানেলের নাম

আপনার ভিডিওর বিষয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে চ্যানেলের একটি স্বতন্ত্র নাম দিতে পারেন। চ্যানেল ট্যাগ ব্যবহার করুন, যা আপনার চ্যানেলটি খুঁজে পেতে সাহায্য করবে।

কিভাবে ইউটিউবে চ্যানেল খুলবেন

ইউটিউব চ্যানেল খুলার জন্য আপনার লাগবে একটি জিমেইল একাউন্ট । এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে শুধু মাত্র জিমেইল একাউন্ট দিয়েই এটা সম্ভব। কারণ ইউটিউব যেহুতু গুগলের একটি সার্ভিস এবং জিমেইল ও গুগলেরই একটি সার্ভিস তাই শুধু মাত্র জিমেইল দিয়েই এটা হবে আর কোনোটা দিয়ে হবে না। তাই আপনাকে অবশ্যই একটি জিমেইল একাউন্ট থাকতে হবে।

জিমেইল একাউন্ট খুলার জন্য এই লিঙ্ক এ কিল্ক করুন- Gmailearn form youtube

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করবেন মোবাইলে ও সাজাবেন

১. youtube.comআপনাকে ইউটিউব এ প্রবেশ করতে হবে । ইউটিউবে প্রবেশ করার পর আপনি আপনার ডিভাইসের স্কিনের ডানদিকে তাকালে দেখতে পারবেন SIGN IN লেখা রয়েছে। সেখানে SIGN IN করুন।

২. এরপর ওপরে ডান পাশের গোল চ্যানেল আইকনে ক্লিক করে My Channel এ ক্লিক করুন। Use YouTube as.. বক্স আসবে। দুই শব্দের চ্যানেল নাম হলে তা দুটি ঘরে লিখে ফেলুন। আর দুই শব্দের চ্যানেল নাম না হলে নিচের Use a business or other name–এ ক্লিক করে পছন্দমতো চ্যানেল নাম লিখে Create Channel–এ ক্লিক করে চ্যানেল তৈরি করুন।

৩. এরপর সবার ওপরে ডান পাশে Create a video or post এ (ক্যামেরার ওপর যোগ চিহ্ন দেওয়া আইকন) ক্লিক করলে Upload video এবং Go live অপশন পাবেন। এখান থেকে ভিডিও আপলোড করুন। শিডিউল অনুযায়ী পোস্টও করতে পারেন। ভিডিও টাইটেল, ভিডিও ডেসক্রিপশন, ট্যাগ, থাম্বনেইল ও প্লে লিস্ট যুক্ত করে Publish এ ক্লিক করে ভিডিও পাবলিশ করুন।

৪. এরপর My Channel থেকে Customize Channel এ ক্লিক করে Channel Icon এবং Channel Art যোগ করুন, Channel Trailer যোগ করুন এবং হোম পেজ সাজান। প্লে লিস্ট তৈরি করুন।

৫.এরপর About এ ক্লিক করে চ্যানেল ডেসক্রিপশন, ই–মেইল, লোকেশন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের লিংক যোগ করুন।

৬. এরপর Status and Feature এর পাশের Verify অপশনে ক্লিক করে মোবাইল নম্বর দিয়ে চ্যানেলটি অবশ্যই ভেরিফাই করে নিন।

৭.এরপর Channel থেকে Branding এ ক্লিক করে চ্যানেল ব্র্যান্ডিং করুন।

৮.এরপর Video Manager থেকে End Screen & Annotation যোগ করুন।

এভাবে আপনার ইউটিউব চ্যানেল খুলা কম্পিলিট হয়ে গেলো।

ইউটিউব কেন টাকা দেয় এবং কোথায় থেকে দেয়?

ইউটিউব হলো পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইট । এখানে প্রতিদিন প্রায় লক্ষ্য লক্ষ্য ভিডিও পাবলিশ হয় পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে । আর এই সব ভিডিও দেখার জন্য প্রতিদিন কোটি মানুষ প্রবেশ করে ।

এত বিপুল সংখ্যক মানুষের সমাগম দেখে ইউটিউবের উপর নজর পরে পৃথিবীর অসংখ্য জনপ্রয়ি ব্রান্ড কম্পানি গুলোর তাদের ব্রান্ডের বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য । এবং তারা তাদের বিভিন্ন পণ্যের বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে ইউটিউব এ এবং ইউটিউব সেই লভ্যাংশ থেকে কিছু টাকা দিয়ে থাকে ইউটিউবের ভিডিও তৈরি কারকদের ।

এভাবেই ইউটিউব প্রতিদিন কোটি কোটি টাকা ইনকাম করে থাকে বিজ্ঞাপন থেকে এবং তার লভ্যাংশ থেকে একটা অংশ দেয় ইউটিউবে যারা নিয়মিত মানসম্মত ভিডিও আপলোড করে যান তাদেরকে।

ইউটিউবে আয়

ইউটিউবের ইনকাম মূলত প্যাসিভ ইনকাম। ইউটিউবের ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে যে আয় হয় তার একটি অংশ ভিডিও নির্মাতা বা ক্রিয়েটরকে দেওয়া হয়। এখানে এমন কোনো সমীকরণ নেই যে এক হাজার ভিউ হলে এত ডলার আয় হবে।

ইউটিউবে চ্যানেল খোলার সঙ্গে সঙ্গেই ভিডিও মনিটাইজেশন করতে পারবেন না। ইউটিউব থেকে আয় করতে আপনাকে ইউটিউবের পার্টনার প্রোগ্রামে অংশ নিতে হবে।

আপনার চ্যানেলটিতে ১২ মাসে কমপক্ষে এক হাজার সাবস্ক্রাইবার ও চার হাজার ঘণ্টা ওয়াচটাইম থাকলে, তা মনিটাইজেশনের জন্য আবেদন করা যাবে। তবে আপনার চ্যানেলে সাবস্ক্রাইবার বেশি থাকলে এবং ভিডিও ভিউ অনেক বেশি হলে ইউটিউবের আয়ের বাইরে আপনি স্পন্সরও জোগাড়ের চেষ্টা করতে পারেন।earn form youtube

সফল ইউটিউবার হতে চাইলে

ইউটিউবে কীভাবে ভিউ বাড়াবেন

আপনার ভিডিওতে যথাযথ ও আকর্ষণীয় শিরোনাম ও থাম্বনেইল যুক্ত করুন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করে ভিডিওর দর্শকের সংখ্যা বাড়াতে পারেন।

ইউটিউবে ভিডিও প্রকাশের সময় এন্ড স্ক্রিনে অন্য ভিডিও বা প্লে লিস্ট যুক্ত করুন। সঠিক ভিডিও ডেসক্রিপশন যোগ করুন। প্রাসঙ্গিক ভিডিও ট্যাগ ব্যবহার করুন। ট্যাগ রিসার্চে TubeBuddy বা VidIQ এর মতো টুলগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

ইউটিউবে সতর্কতা

আপনাকে অবশ্যই কপিরাইট ও কমিউনিটি গাইডলাইন মানতে হবে এবং এ নির্দেশনাগুলো না মানলে আপনার মনিটাইজেশন (আয়) বন্ধ হয়ে যেতে পারে,এমনকি আপনার চ্যানেলটি বন্ধও হতে পারে। কপিরাইট ও কমিউনিটি গাইডলাইনের তিনটি স্ট্রাইক থাকে।

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে একেকটি স্ট্রাইকের জন্য ভিডিও মুছে যাওয়া, লাইভ স্ট্রিমিং বন্ধ হওয়া, ভিডিও আপলোড করতে না পারার মতো ঘটনা ঘটে। আর তৃতীয় স্ট্রাইকে চ্যানেল বন্ধ করা হয়। তবে আপনি যদি মনে করেন, আপনার কপিরাইট স্ট্রাইকটি ভুল করে দেওয়া হয়েছে,তাহলে কাউন্টার নোটিফিকেশন দিতে পারেন।

ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায় কী?

অনেকেই ইউটিউবে অনেক দিন ধরে লেগে থেকেও অনেক ভিডিও আপলোড করে কিন্তু সফলতা পাচ্ছে না । তাদের জন্যই মূলত আজকের এই পোস্টটা, এভাবে অনুসরন করলে আপনিও সফল হতে পারবেন।

সঠিক নিশ বাছাই

ইউটিউবে সফল হতে হলে আপনাকে সবার প্রথমে একটি টপিকের উপর ভিডিও বানাতে হবে। এটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ কারণ আপনি যখন একটি নির্দিষ্ট টপিকরে উপর ভিডিও করতে থাকবেন। তখন আপনার চ্যানেলটি দর্শকদের কাছে অনেক বেশি গুরুত্ব পাবে।

কারণ তখন কোনো দর্শক যখন আপনার চ্যানেলে একবার প্রবেশ করবে তখন সে যদি দেখে আপনার চ্যানেলে এবটি বিষয়ের উপর বিস্তারিত সব ভালো তথ্য দেওয়া আছে তখন সে অবশ্যই সেই বিষটা জানার জন্য আপনার চ্যানেলটিকেই সবচেয়ে বেশি প্রধান্য দেবে তাই একটি টপিকের উপর ভিডিও তৈরি করা সবচেয়ে উত্তম।

আপনাকে অবশ্যই এমন একটি টপিক বাছাই করতে হবে যেটির ভালো চাহিদা রয়েছে।

কিভাবে ইউটিউবে মানসম্মত ভিডিও বানাবেন?

ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করে সফল হওয়ার ০৭ টি সেরা উপায়

১.ফানি ভিডিও- আপনি বিভিন্ন ফানি ভিডিও তৈরি করতে পারেন,যেটার মাধ্যমে আপনি অতি সহজেই জনপ্রিয় হয়ে যেতে পারেন।

২.রিভিউ ভিডিও- আপনি বিভিন্ন ইলেক্টিকেল যন্ত্রপাতির/ফোন/ল্যাপটপ/গাড়ি ইত্যাদি রিভিউ দিতে পারেন। এই নিশ নিয়ে কাজ করলে খুব সহজেই সফল হওয়ার সম্ভবনা আছে।earn form youtube৩. খাবার রেসিপি- আপনি বিভিন্ন খাবার রেসিপি বানিয়ে সেটা ভিডিও করে ইউটিউবে আপলোড করতে পারেন যা দেখে অনেকে রান্না শিখতে পারবে। যেটার মাধ্যমে আপনি অতি সহজেই জনপ্রিয় হয়ে যেতে পারেন।
বিশেষ করে মেয়েদের কাছে।

৪.টেকনোলজি- আপনি বিভিন্ন নতুন নতুন টেকনোলজি আপডেট নিয়ে ভিডিও বানাতে পারেন। এই নিশ নিয়ে কাজ করলে খুব সহজেই সফল হওয়ার সম্ভবনা আছে কারন টেকনোলজি আপডেট নিয়ে আজকের মানুষ খুবই আগ্রহী।

৫.টিউটেরিয়াল- বিভিন্ন সফটওয়্যার এর টিউটোরিয়াল নিয়ে ভিডিও বানাতে পারেন বা কিভাবে? কি? কিভাবে করবো? এই নিশ নিয়ে কাজ করতে পারেন।এতে আপনি নিজে যেমন শিখতে পারবেন সাথে আপনার ভিডিও দেখে অনেক মানুষ উপকৃত হবে এবং সেই সাথে অর্থও আয় করতে পারবেন।

৬.মটিভেশন- আপনি বিভিন্ন মোটিভেশনমূলক ভিডিও করতে পারেন।

৭.জীবন কাহিনী– আপনি বিভিন্ন মানুষের জীবন কাহিনী নিয়ে ভিডিও বানাতে পারেন বিশেষ করে সফল মানুষের জীবন কাহিনী বেশ জনপ্রিয় এক্ষেত্রে আপনি খুব সহজেই সফল হওয়ার সম্ভবনা আছে।

ইউটিউব থেকে আয় ২০১৮ – ২০১৯ 

জনপ্রিয় ইউটিউবারের নাম ও তাদের আয়ের পরিমাণ দেখে নিন-

১. Shane Dawson- 431 million views and earn $315,000

২. The Annoying Orange- 349 mil views and earn $288,000

৩. Philip DeFranco- 248 mil views and earn $181,000

৪. Ryan Higa- 206 mil views and earn $151,000

৫. Fred- 200 mil views and earn $146,000

ইউটিউব থেকে আয় এই পোস্টটি ভালো লাগলে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিবেন এবং Factarticle.com এর সংগেই থাকবেন।

BY:Factarticle.com

One Reply to “কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় ,দুর্দান্ত টিপস! ২০২০

  1. [url=https://phenergan24.com/]buy generic phenergan[/url] [url=https://advair2019.com/]buying advair in mexico[/url] [url=https://propranolol100.com/]propranolol pills online[/url] [url=https://valtrex100.com/]generic valtrex sale[/url] [url=https://lipitor24.com/]buy lipitor in india[/url]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *