Online Earning

ঘরে বসে অনলাইনে আয় করার কিছু সফল উপায় – ২০২০

আমাদের আজকের মূল আলোচনার বিষয় হচ্ছে- আপনি কিভাবে ঘরে বসে অনলাইনে আয় করবেন?এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। সম্পূর্ণ কনটেন্টটি পড়ে ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে আয় করুন –

অনলাইনে আয় এর জন্য দক্ষতা থাকা অত্যন্ত জরুরি। আর অনলাইন কাজের ব্যাপ্তি যেভাবে বিস্তৃত হয়ে উঠছে তাতে সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজেকে তৈরি করে নিতে না পারলে অভিজ্ঞ ও দক্ষদের ভিড়ে হারিয়ে যাওয়ার সম্ভবনাটাই বেশি।

তাই সময়োপযোগী কাজের দক্ষতা অর্জন ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নিজেকে তৈরি করে নিতে পারলেই লাভবান হওয়া যাবে। ভুলে গেলে চলবে না, ইন্টারনেটে একদিকে যেমন কাজের কোনো অভাব নেই, অপরদিকে কাজ করার যোগ্য ব্যক্তিরও চাহিদার শেষ নেই।

এখন ফ্রিল্যান্সিং কাজের দিকে ঝুঁকে পড়ছেন অনেকেই। অফিসের ধরাবাঁধা নিয়মে আটকে না থেকে ফ্রিল্যান্সিংকেই পেশা হিসেবে বেছে নিচ্ছেন অনেকেই। কয়েকটি খাতে নিয়মিত ফ্রিল্যান্সার বা মুক্ত পেশার কর্মী নিয়োগ দেওয়া হয়। নিজ কর্মসংস্থানের সুযোগ এখন এতটাই বেড়েছে যে বিশাল জনগোষ্ঠী আজ এ দিকেই ঝুঁকে পড়ছে।

কনটেন্ট-টির বিষয়বস্তু

  • কনটেন্ট লিখে আয়
  • ব্লগিং থেকে  আয়
  • ডিজিটাল মার্কেটিং
  •  আর্থিক পরামর্শক
  • অভিজ্ঞতা বিনিময়
  • ডেটা অ্যানালাইটিকস
  • ওয়েব ডেভেলপার
  •  শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ
  •  ক্রিয়েটিভ ডিজাইন

ঘরে বসে অনলাইনে আয়

অনলাইনে অনেক প্রলোভোনের অফার আছে, এখন আপনাকে বিবেচনা করতে হবে যে কোনটি সঠিক আর কোনটি বেঠিক, কোনটি আসলে শিখিয়ে যাচ্ছে আর কোনটি প্রতারক চক্র, আপনি যদি কখনো প্রতারক চক্রের মধ্যে পড়ে যান তাহলে অবশ্যই আপনার কিছু সময়, অর্থ এবং আপনার পরিশ্রম বৃথা যেতে পারে।

আবার অনলাইনে আয় করার নানা সুযোগ থাকলেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রতারণার মুখে পড়তে হতে পারে, তাই সতর্ক থাকতে হবে সর্বত্র। কিছু অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, ওয়েবসাইট ও রিসোর্স আছে, যা কাজে লাগিয়ে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

যে কয়েকটি খাতে ঘরে বসে অনলাইনে আয় করার চাহিদা বাড়ছে তা জেনে নিন-

কনটেন্ট লিখে আয়

অনেকেই ভালো কনটেন্ট লিখতে পারেন। ইংরেজিসহ যেকোনো ভাষায় ভালো মানের কনটেন্ট লিখতে পারেন, এমন কর্মীর চাহিদা রয়েছে। পেশাদার কর্মী হিসেবে ভালো কনটেন্ট তৈরি বা কোনো বিষয় তুলে ধরতে পারলে ফ্রিল্যান্সিং ক্ষেত্রে ভালো করার সুযোগ রয়েছে।

[pullquote]আপনি চাইলে-মোবাইল দিয়ে অনলাইনে আয় করুন খুব সহজেই – 2020[/pullquote]

দেশের প্রতিটি ছোট বা বড় ব্যবসার ক্ষেত্রেই কনটেন্টের প্রয়োজন পড়ে। তাই এ খাতে অনলাইনে আয়ের জন্য বড় সুযোগ রয়েছে।আপনার যদি ভাল লেখার দক্ষতা থাকে, তাহলে আপনার জন্য ইন্টারনেটে প্রচুর কাজ আছে। আপনি ৫০০ শব্দের কন্টেন্ট এর জন্য ৫$ থেকে ১০$ আয় করতে পারেন।

অনলাইনে আয়

ভালো কনটেন্ট তৈরির উপায়

কাজ পাওয়ার পর বুঝে নিতে হবে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের জন্য কী উদ্দেশ্যে আপনি কনটেন্ট তৈরি করছেন। কিছু বিষয় খেয়াল রাখলে আপনি আপনার মেধা দিয়ে ভালো মানের কনটেন্ট তৈরি করতে পারেন।

● বিভিন্ন ভালো কনটেন্ট পড়ে একটি সামগ্রিক ধারণা তৈরি করা

● অন্যের কনটেন্ট কপি-পেস্ট না করে স্বতন্ত্র কনটেন্ট তৈরি করা

● বানান, ব্যাকরণ ও বাক্যের গঠনের দিকে খেয়াল রাখা

● নিশ্চিত না হয়ে অনুমানের ভিত্তিতে কোনো তথ্য না দেওয়া

● নির্দিষ্ট কোনো তথ্য প্রদানের ক্ষেত্রে তথ্যসূত্র উল্লেখ করা

● অনেক বড় প্যারাগ্রাফ না লিখে একেকটি বিষয়ের জন্য একেকটি ছোট প্যারাগ্রাফ তৈরি করা

● যথাযথ কি–ওয়ার্ড ব্যবহার করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উপস্থাপন করা

● নিয়মিত চর্চা করা

ব্লগিং থেকে Adsense আয়

Adsense হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপনের (Advertisement) Program. এটি গুগল কর্তৃপক্ষ সয়ং নিজে পরিচালনা করছে। আপনি যদি আপনার ব্লগটিকে ভাল মানের Platform এ নিয়ে যেতে পারেন।

আপনার ব্লগে প্রচুর পরিমানে ভিজিটর থাকে তাহলে Adsense থেকে আপনি হাজার হাজার টাকা উপার্জন করতে পারবেন। এ পদ্ধতীতে আপনার ব্লগে Adsense এর বিজ্ঞাপন ব্যবহার করে ক্লিক প্রতি ডলার আয় করতে পারবেন। অনলাইনে আয় করার সহজ উপায় এভাবে কাজ করলে আপনি সফলতা পাবেন।

এ ক্ষেত্রে হয়তো আপনি প্রথম ২-৩ মাস একটু কষ্ট করতে হবে। তাই বলে আপনি নিরাশ হয়ে থেমে থাকবেন না। এভাবেই মোবাইল দিয়ে অনলাইনে আয় করুন।

অনলাইনে আয়

ইউটিউব থেকে আয় করতে চাইলে এই কনটেন্টি পড়ুন- কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করা যায় ,দুর্দান্ত টিপস! ২০২০

আপনি যদি একবার কাজটা আয়ত্ব করতে পারেন তাহলে আপনি অনেক ফুল টাইম চাকুরিজীবির চেয়ে অনেক বেশি আয় করতে পারবেন এই ব্লগিং সেক্টর থেকে।

 ডিজিটাল মার্কেটিং

স্টার্টআপ বা উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্সারদের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। প্রতিষ্ঠানকে বাজারে তুলে ধরতে কম খরচে ডিজিটাল মার্কেটারদের খোঁজ করে অনেক প্রতিষ্ঠান।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম থেকে শুরু করে ওয়েব প্ল্যাটফর্মে প্রতিষ্ঠানকে তুলে ধরতে ফ্রিল্যান্সার ডিজিটাল মার্কেটিং কর্মীর দিকেই বেশি ঝোঁক দেখা যায়। তাই ফ্রিল্যান্সাররা এ খাতে ভালো করতে পারবেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি এবং এর মাধ্যমে ইনকাম করতে কনটেন্টটি পড়ুন-ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে যেভাবে আপনি সফল হবেন !

 আর্থিক পরামর্শক

ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ব্যবস্থাপনার কাজে দক্ষ ফ্রিল্যান্স কর্মীর চাহিদা বাড়ছে। বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে দক্ষ এ ধরনের কর্মীকে তাঁর অভিজ্ঞতার ওপর ভিত্তি করে ভালো পারিশ্রমিকে কাজের সুযোগ দেওয়া হয়। যাঁরা এ ধরনের পেশায় রয়েছেন, তাঁদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং ভালো সুযোগ হতে পারে।

অনলাইনে আয়

অভিজ্ঞতা বিনিময়

আপনার যদি বিশেষ কোনো বিষয়ে ভালো অভিজ্ঞতা বা পড়াশুনা থাকে তবে কলেজগুলো সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অতিথি বক্তা হিসেবে বক্তব্য দিতে পারেন। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতিতে সহায়তায় চালু করতে পারেন শিক্ষাদান পরিষেবা বা কোর্স। প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে এসবেরও রয়েছে ভালো চাহিদা।

 ডেটা অ্যানালাইটিকস

ফ্রিল্যান্স পেশাদার কর্মীদের ক্ষেত্রে চাহিদাসম্পন্ন একটি দক্ষতা হচ্ছে ডেটা অ্যানালিটিকস। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের তথ্য বিশ্লেষণ করে প্রয়োজন অনুযায়ী ইনসাইট দেওয়া ও কাজে লাগানোর পরামর্শদাতাকে এখন অনেক প্রতিষ্ঠানেই নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

স্টার্টআপের ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্স ডেটা অ্যানালাইটিকস দক্ষ কর্মীকে নিয়োগ দেওয়ার হার বেশি। তবে বড় বড় প্রতিষ্ঠানেও এখন এ ধরনের কর্মীর চাহিদা বাড়ছে।

আরও দেখুন– আপনি আপনার সোফায় বসে অর্থ উপার্জন করুন ৯ টা ওয়েবসাইট থেকে, না দেখলে মিস করবেন-কিল্ক করুন 

ওয়েব ডেভেলপার

এখনকার বাজারে অনেকেই নতুন ওয়েবসাইট তৈরি বা যুগোপযোগী অনলাইন ব্যবসা শুরু করছেন। ফলে নতুন কোম্পানিগুলোর ক্ষেত্রে ওয়েব ডেভেলপারদের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। অনলাইনে আয় করার এ খাতটিতে কাজ করার ব্যাপক সুযোগ রয়েছে।

বর্তমানে অনলাইনে কাজের ক্ষেত্রে ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। যে কোনো ওয়েবসাইট ডিজাইন করে ২০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করা যায়। নিজেদের ওয়েবসাইট তৈরিতে সবাই ওয়েব ডিজাইনারের শরণাপন্ন হন।

যারা ওয়েব ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতে চান নিজেদের ওয়েবসাইট খুলে সেখান থেকেই ছোট ব্যবসা দাঁড় করাতে পারেন। ওয়েবসাইট তৈরিতে এখন কোডিং আর ওয়েব ডিজাইন দুটিই গুরুত্বপূর্ণ।

এ ছাড়া ওয়েবসাইট ম্যানেজমেন্ট ও আপডেটের জন্যও ওয়েব ডিজাইনার দরকার। ওয়েব ডিজাইনারের কাজের কোনো কমতি হয় না। কাজ অনুযায়ী ওয়েব ডিজাইনারের আয়ও বাড়তে থাকে।

 শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ

অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠান এখন তাঁদের কর্মীদের দক্ষতা বাড়াতে প্রশিক্ষক নিয়োগ দিচ্ছে। এ ছাড়া নিজেরও প্রশিক্ষক হিসেবে কোর্স চালু করার সুযোগও রয়েছে। অনেক প্রতিষ্ঠান এখন চাপমুক্তি, সম্পর্ক ব্যবস্থাপনা, কর্মক্ষেত্রে সুস্থ থাকার মতো নানা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। ফলে প্রশিক্ষক হিসেবে ঘরে বসে অনলাইনে আয় করার সুযোগও বাড়ছে।

আপনি যদি বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষ হয়ে থাকেন, যেমন- Math, English, Physics, Biology, Humanities ইত্যাদি। তাহলে আপনি প্রশ্নোত্তর প্রদানের মাধ্যমে ইন্টারনেটে অন্যের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে দিতে পারেন।

অনলাইনে আয়

যদি আপনি তাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর সঠিকভাবে দিতে পারেন, তাহলে ইন্টারনেটে অনেক সাইট আছে যেগুলো আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করবে তাদের সাইটে জয়েন করার জন্য। ফলে সাইটে জয়েন করার মাধ্যমে ওই কোম্পানি থেকে আপনি টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

 ক্রিয়েটিভ ডিজাইন

ঘরে বসে অনলাইনে আয় এরমধ্যে এখন সবচেয়ে জনপ্রিয় ক্ষেত্র হলো ক্রিয়েটিভ ডিজাইন। অনেক প্রতিষ্ঠান এখন ফ্রিল্যান্সারদের মাধ্যমে তাদের প্রেজেন্টেশন তৈরি বা ডিজাইনের কাজ করিয়ে নেয়। যাঁরা ক্রিয়েটিভ ডিজাইনে দক্ষ, তাঁরা দেশে ও দেশের বাইরে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে কাজের মাধ্যমে ক্যারিয়ার গড়ে তুলছেন।

নিচের এই কনটেন্ট গুলো পড়ে ঘরে বসে অনলাইনে আয় করুন – 

কাজ শুরু করুন, আশা করি,আপনি সফল হবেন। ঘরে বসে অনলাইনে আয় করার সফল উপায় এই পোস্টটি ভালো লাগলে আপনি সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিবেন এবং (Factarticle)  আমাদের সঙ্গেই থাকবেন। আপনার ভালো লাগ্লেই বা উপকৃত হলেই আমরা সার্থক।

সৌজন্যেঃ Factarticle.com

Comments

Tags
Back to top button
Close
Close