queen elijabeth fct
LiFe HistOrY

ইংল্যান্ড এর রানী এলিজাবেথ যখন ভার্জিন ও ইতিহাস

1st Queen Elizabeth of England when Virgin and History elizabeth queen

ইংল্যান্ড এর রানী এলিজাবেথ যখন ভার্জিন ও ইতিহাস

রানী এলিজাবেথ এর জীবনী সম্পর্কে জানতে চায় অনেকেই। জানতে যায় এলিজাবেথ এর জীবন ইতিহাস, জানতে যায় কি কারণে তিনি বিয়ে করেননি। তাই সেটাকে ঘিরেই আজকের আমার পোস্ট। 

*প্রথম রানি এলিজাবেথ ইংল্যান্ড এর রাজ পরিবারের ইতিহাস  

প্রথম এলিজাবেথ ১৫৫৮ থেকে তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ইংল্যান্ডের রাণী, ফ্রান্সের রাণী ও আয়ারল্যান্ডের রাণী ছিলেন। ১৫৩৩ সালের ৭ই সেপ্টেম্বর ইংল্যান্ডের গ্রিনউইচে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

*এলিজাবেথের শৈশব

এলিজাবেথের জন্ম 1533 সালের 7 সেপ্টেম্বর রাজা হেনরি আটটির দ্বিতীয় কন্যা। তার পূর্বসূরি ছিলেন ইংল্যান্ডের রাজা অষ্টম হেনরি। তিনি ছোটবেলা থেকেই রাজবংশের রাজকীয় পরিবেশে বেড়ে ওঠেন। এলিজাবেথের বয়স যখন মাত্র আড়াই বছর তখন তাঁর মা অ্যান বোলিনকে শিরচ্ছেদ করে হত্যা করা হয় এবং এলিজাবেথকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়।

*এলিজাবেথ যখন রানী

টিউডর রাজবংশের পঞ্চম ও সর্বশেষ রানী ছিলেন তিনি। তাঁর বাবা ছিলেন রাজা অষ্টম হেনরি।মেরি 15 নভেম্বর, 1758 সালে মারা যান, এবং এলিজাবেথ সিংহাসন উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত হন।

*ভার্জিন রানী এলিজাবেথ 

তিনি কুমারী ছিলেন। বিয়ে করেননি বলে তাকে কুমারী রানী বলা হতো। কুমারী রানী এলিজাবেথের বুদ্ধিমত্তার এখনো প্রশংসা করা হয়। রাষ্ট্র পরিচালনার দিক থেকে চিন্তা করলেও তার দক্ষতা নিয়ে কখনই প্রশ্ন ওঠেনি।

সচেতনভাবে নিজেকে রাষ্ট্র হিসেবে বিবাহিত ভার্জিন রানী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন এবং “গোল্ডেন এজ” এর সময় ইংল্যান্ডের শাসন করেছিলেন। তিনি বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত এবং উচ্চ সম্মানিত সম্রাটদের মধ্যে অন্যতম।

*বিবাহ প্রশ্ন

রানী হয়ে রাজ্য পরিচালনা শুরু করার পরই একটি প্রশ্ন সবার সামনে এসে দাঁড়ায় আর তা হলো- কে হবে রানীর স্বামী?
এলিজাবেথের মুখোমুখি প্রথম চ্যালেঞ্জ হল বিয়ে।রানী ছিলেন অবিবাহিত। তাই ইতিহাসের পাতায় চিরকুমারী রানী হিসেবেই বেশি পরিচিতি পান তিনি। 

স্বাভাবিকভাবেই কেন তিনি অবিবাহিত ছিলেন এই নিয়ে হয়েছে বিস্তর আলোচনা রয়েছে । কারণ তার বিয়ের মধ্য দিয়েই উত্তরাধিকার নির্বাচিত করা যেত সহজেই। যাতে তার মৃত্যুর পর রাজসিংহাসন নিয়ে গৃহযুদ্ধের সূচনা না হয়।

ইউরোপের বিভিন্ন রাজপরিবার থেকে শুরু করে ইংল্যান্ডের বিভিন্ন উচ্চপদস্থ ব্যক্তিরা রানীকে বিয়ে করার জন্য মরিয়া হয়ে গিয়েছিলেন। যাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলেন এলিজাবেথের সৎ বোন রানী মেরির স্বামী স্পেনের রাজা ফিলিপ, তৎকালীন সুইডেনের প্রিন্স এরিক, রোমান হলি এমপেরোর ফার্ডিনান্দের ছেলে আর্চডিউক চার্লস এবং এমন আরও অনেকেই।

queen elizabeth fct

*যে কারণে রানী এলিজাবেথ বিয়ে করেননি? 

এলিজাবেথকে এমন কাউকে স্বামী হিসেবে বেছে নিতে হবে যে ইউরোপের কোনো ক্ষমতাশালী রাজা হবে না, কিন্তু পদমর্যাদা খুব ভালো হবে এবং শুধু রানীর স্বামী হিসেবেই থাকবে। সব কিছু মিলিয়ে রানীর মন্ত্রীরা প্রাথমিকভাবে সুইডেনের প্রিন্স এরিককে রানীর স্বামী হিসেবে ভেবেছিলেন। কারণ, এরিক ছিলেন ইংল্যান্ডের জনগণের মাঝে তুমুল জনপ্রিয়।

ধর্মমত দিয়েও দুজন একই ধর্মের অনুসারী। কিন্তু সুইডেনের রাজপরিবারের খুব বেশি সম্পত্তি না থাকায় এই বিয়ে নাকচ করা হয়।ফ্রান্সের রাজার ভাই ডিউক অব এলেনকন, ফ্রান্সিস। ফ্রান্সিস ইংল্যান্ডে আসেন রানী এলিজাবেথকে বিয়ে করতে। রানীও তাকে পছন্দ করেন। কিন্তু আবারও ধর্ম এবং রাজনীতি বড় বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এভাবেই মধ্যযুগে ইংল্যান্ডের সর্বশ্রেষ্ঠ রানীকেই আজীবন অবিবাহিত থাকতে হয়।

*রানী এলিজাবেথের ক্ষমতা 

রানী প্রথম এলিজাবেথ ছিলেন অসম্ভব রাষ্ট্রক্ষমতার অধিকারিণী। নারী হয়েও যে রাষ্ট্র শাসনের ভার সফলভাবে পালন করা যায়, সেটির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত পাওয়া যায় তার মাধ্যমেই। ইতিহাসে তার স্থানটি রয়েছে তাই বিশেষ মর্যাদায়।

*যে কারণে এলিজাবেথকে ঘিরে যুদ্ধ 

স্পেনের তৎকালীন শাসক তার বড় ছেলের সঙ্গে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন এলিজাবেথকে। কিন্তু রানী প্রত্যাখ্যান করেন তা। এরপর স্পেনের সঙ্গে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন তিনি। প্রখ্যাত লেখক স্টিভ তার বইয়ে রানী এলিজাবেথকে তাই পুরুষ হিসেবে সন্দেহ করেন। বিবাহ সম্পর্ক তৈরি করে যে যুদ্ধ অনায়াসেই এড়ানো যেত সেখানে রানী হয়তো চেয়েছিলেন নিজের আসল পরিচয় ঢাকতে। অন্তত এমনটাই মনে করছেন লেখক স্টিভ। মার্কিন লেখক স্টিভ বেরি তার উপন্যাস নিউ ইয়র্কের ব্যালান্টাইন বুকস থেকে প্রকাশিত ‘দ্য কিংস ডিসেপশন’ এ এমনই দাবি করেছেন।

elizabeth familly fct

*রানী এলিজাবেথ এর  খ্যাতি 

এলিজাবেথের রাজত্বের বেশিরভাগই তার নিজের আদালতের পাশাপাশি অন্যান্য জাতির উভয় দলের মধ্যে সতর্কতার সাথে ভারসাম্যমূলক কাজ ছিল।

*রানী এলিজাবেথ এর মৃত্যু  

১৬০৩ সালের ২৪ মার্চ রিচমন্ডে পরলোক গমন করেন তিনি। রানীর মৃত্যু নিয়ে অনেক রকম কথা প্রচলিত আছে। যেমন অনেকে বলেন, রানীর প্রসাধনীর সঙ্গে বিষ মিশানো ছিল যা রক্তের সঙ্গে মিশলে মৃত্যুবরণ করেন রানী। আবার অনেকে বলেন, তিনি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

পোস্টটি ভালো লাগলে বাঁ উপকৃত হলে Factarticle এর সঙ্গেই থাকবেন। 

BY:Factarticle.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *